Keyword density কি ? কিভাবে ক্যালকুলেট করবেন ( Advanced SEO )


Keyword density কি ? (about keyword density in Bangla) : একটি ব্লগ বা ওয়েবসাইটের SEO করার ক্ষেত্রে targeted keyword এর সঠিক ব্যবহার করাটা অনেক জরুরি।

Keyword target করে আমরা যেকোনো আর্টিকেলের মূল বিষয়টি গুগল সার্চ ইঞ্জিনকে অধিক সহজ ভাবে বুঝিয়ে দিতে পারি।

এবং, “অফ পেজ এসইও” বলুন বা “অন পেজ এসইও“, প্রত্যেক ক্ষেত্রেই “লক্ষ্যবস্তু কীওয়ার্ড এর ব্যবহার” অধিক গুরুত্বপূর্ণ।

তবে, কিছু বছর আগে Google Search Engine আজকের মতো এতটা advance ছিলোনা।

সেই সময় নিজের ব্লগের আর্টিকেল গুলো, গুগলে র্যাংক (rank) করিয়ে ট্রাফিক পাওয়ার উদ্দেশ্যে প্রচুর ব্লগাররা করতেন “Keyword Stuffing“.

Keyword stuffing বা keyword over optimization দুটোই একি প্রক্রিয়া।

এই প্রক্রিয়াতে, ব্লগাররা নিজের আর্টিকেলে target করা keyword গুলো বার বার অধিক মাত্রায় ব্যবহার করতেন।

ফলে, গুগল সার্চ ইঞ্জিনে তাদের এটিকেল গুলো target করা keyword এর জন্য rank হয়ে যেতো।

এভাবে, একটি আর্টিকেলে একি (same) কীওয়ার্ড এর সীমাহীন ব্যবহারের প্রক্রিয়া টিকেই বলা হয় “keyword stuffing”.

হে, প্রায় ২০১১ সালের শেষ অব্দি হয়তো অনেকেই এই প্রক্রিয়া ব্যবহার করে গুগল থেকে প্রচুর traffic পেয়েছেন।

কিন্তু, বর্তমান সময়ে গুগলের বোট (Google bot) গুলো প্রচুর উন্নত হয়ে গেছে।

এবং, এই ধরণে করা keyword এর অত্যাধিক ব্যবহারের বিপরীতে গুগল আপনার website সম্পূর্ণ ভাবে penalize করে দিতে পারে।

আর একবার যদি আপনার ব্লগ গুগল দ্বারা “penalize” হয়, তাহলে তার পরিনাম সাংঘাতিক।

আপনার সম্পূর্ণ ব্লগ বা ব্লগের কিছু বিশেষ পেজ যেখানে keyword stuffing করা হয়েছে, সেগুলো সম্পূর্ণ ভাবে গুগল সার্চ থেকে ডিলিট হয়ে যাবে।

ফলে, আপনার ব্লগে গুগল থেকে আসা ট্রাফিক বা ভিসিটর্স এর পরিমান ৯০% অব্দি কমে যেতে পারে।

আর মনে রাখবেন,

প্রত্যেক বছর বিভিন্ন “গুগল অ্যালগরিদম আপডেট” গুলো করা হয় ওয়েবসাইটের র্যাংকিং নির্ধারিত করার উদ্দেশ্যে।

এবং, গুগলের এই core algorithm update গুলোর মাধ্যমে, keyword stuffing এর প্রক্রিয়া ব্যবহার করা বিভিন্ন website গুলোকে খুঁজে penalize করা হয়।

এখন চলুম নিচে আমরা জেনেনেই “কীওয়ার্ড ডেনসিটি কি” (What Is Keyword Density in Bangla) এবং ওপরে বলা কথা গুলোর সাথে এর কি সম্পর্ক।

Keyword density মানে কি ?

What is keyword density in SEO ?

দেখুন, keyword density মানে হলো “কীওয়ার্ড এর ঘনত্ব“.

একটি আর্টিকেলে টার্গেট করা keyword বা বাক্য গুলো সম্পূর্ণ আর্টিকেলে কতবার ব্যবহার করেছেন, সেই পরিমান টিকেই বলা হয় “কীওয়ার্ড ডেনসিটি”.

ওপরে আমি আপনাদের বলেছি যে, ব্লগের আর্টিকেলে target করা keyword এর অধিক ব্যবহারের ফলে, গুগল আপনার ওয়েবসাইটকে penalize করতে পারে।

এবং যার ফলে, আপনি গুগল থেকে প্রচুর traffic হারাবেন।

এবং, কিছু ক্ষেত্রে তো এই keyword over optimization এর বিপরীতে গুগল দ্বারা আপনার সম্পূর্ণ ওয়েবসাইট penalize হওয়ার সুযোগ থাকে।

তাই, আর্টিকেলে অধিক পরিমানে কীওয়ার্ড এর ব্যবহার করাটা ক্ষতিকারক হতে পারে।

কিন্তু,

আমরা সবাই জানি যে, “ব্লগের SEO র ক্ষেত্রে একটি আর্টিকেলে কীওয়ার্ড এর সঠিক ব্যবহারের গুরুত্ব অধিক”.

একটি আর্টিকেলে target করা keyword এর উচিত পরিমানে ব্যবহার না করলে, সেই আর্টিকেল গুগলে ভালো করে র্যাংক (rank) হতে পারবেনা।

ফলে, এই ক্ষেত্রেও আপনার ব্লগে গুগল থেকে traffic বা visitors প্রচুর  কম আসবে।

তাহলে এখন কি করা যেতে পারে ?

যেটা আমরা বুঝলাম, আর্টিকেলে keyword এর অধিক ব্যবহার কোরকেও ওয়েবসাইটের ক্ষতি হবে এবং কীওয়ার্ড এর ব্যবহার কম হলেও গুগল সার্চে ওয়েবসাইটের ranking ভালো থাকবেনা।

তাই প্রশ্ন এটাই থাকছে যে,

  • কিভাবে বুঝবেন আর্টিকেলে কতটা কীওয়ার্ড ব্যবহার করতে হবে ?
  • একটি আর্টিকেলে কতটুকু কীওয়ার্ড ব্যবহার করা যেতে পারে ?
  • আর্টিকেলে keyword এর কতটুকু ব্যবহার SEO র ক্ষেত্রে জরুরি ও সুরক্ষিত ?
  • কতটুকু কীওয়ার্ড ব্যবহার করলে সেটা keyword stuffing এ ধরা হবেনা ?

এই প্রত্যেক প্রশ্নের উত্তর একটাই। এবং, সেটা হলো “Keyword Density“.

কীওয়ার্ড ডেনসিটি হলো আধুনিক search engine optimization (SEO) এর এমন এক প্রক্রিয়া, যার ব্যবহার করে আমরা আমাদের ব্লগের আর্টিকেলে ব্যবহার করা targeted keyword এর ঘনত্ব বেড় করতে পারি।

এবং কীওয়ার্ড এর এই ঘনত্ব আমার একটি keyword density formula ব্যবহার করে percentage (%) হিসেবে পেয়ে যেতে পারি।

এতে আমরা অনেক সহজেই জেনেনিতে পারি যে, সম্পূর্ণ আর্টিকেলে আমাদের লক্ষবস্তু কীওয়ার্ড এর সঠিক ও সুরক্ষিত ব্যবহার হয়েছে তো।

উদাহরণ স্বরূপে,

ধরুন আপনি একটি ২০০০ শব্দের আর্টিকেল লিখেছেন।

এখন, ২০০০ শব্দের আর্টিকেলে আপনি নিজের লক্ষবস্তু কীওয়ার্ড এর ১০ বার ব্যবহার করলেন।

এখন, কিভাবে বলতে পারবেন যে, ২০০০ শব্দের আর্টিকেলে আপনার লক্ষবস্তু কীওয়ার্ড এর ব্যবহারের পরিমান সঠিক ?

যদি keyword এর ব্যবহার বেশি হয়, তাহলে গুগল penalize করবে।

এবং, কম হলে গুগল সার্চ ইঞ্জিনে আপনার আর্টিকেল র্যাংক করবেনা।

এর উত্তর হলো, আর্টিকেলে ব্যবহার করা কীওয়ার্ড এর ডেনসিটি বা ঘনত্ব ক্যালকুলেট করে সেটা জেনেনিতে পারবেন।

আর, এভাবে ক্যালকুলেট করে আর্টিকেলে টার্গেটেড কীওয়ার্ড এর ব্যবহার এর পরিমান বের করার প্রক্রিয়াটিকেই বলা হয় “SEO keyword density“.

Keyword density ক্যালকুলেট কিভাবে করবেন ?

যদি আপনি নিজের ব্লগে লিখা কনটেন্ট বা আর্টিকেল এর কীওয়ার্ড ডেনসিটি বের করতে চাচ্ছেন, তাহলে এই জিনিস গুলোর প্রয়োজন হবে :-

  1. আপনার target করা keyword এ কতটা শব্দ রয়েছে ?
  2. আর্টিকেলে total words এর পরিমান কত ?
  3. Keyword density বের করার সঠিক formula.

কীওয়ার্ড ডেনসিটি ক্যালকুলেট করার ফর্মুলাটি হলো :

 (Number of times keyword used / total number of words in article) * 100

উদাহরণ স্বরূপে,

যদি আমি একটি আর্টিকেল লিখেছি “১২০০ শব্দের ভেতরে” এবং সেখানে আমি আমার targeted keyword এর ব্যবহার “১২ বার করেছি“, তাহলে keyword density কত হলো ?

Keyword density formula আমরা পেলাম,

  • Number of times keyword used = ১২
  • Total number of words in article = ১২০০

তাহলে ফর্মুলা হিসেবে ক্যালকুলেট করলে,

(১২/১২০০) * ১০০

১২/১২০০ = ০.০১

০.০১ * ১০০ = ১

মানে, keyword density বের হলো “১%“.

এভাবে আপনারা, নিজের সম্পূর্ণ আর্টিকেলে সঠিক পরিমানে targeted keyword এর ব্যবহার হচ্ছে কি না, সেটা দেখে নিতে পারবেন।

এবং, SEO র ক্ষেত্রে এটা অনেক জরুরি।

তবে, ফর্মুলা (formula) ছাড়াও আমরা কনটেন্ট এর কীওয়ার্ড ডেনসিটি চেক করতে পারি কিছু অনলাইন SEO tools/websites এর মাধ্যমে।

কীওয়ার্ড ডেনসিটি চেক করার সেরা ওয়েবসাইট

এমনিতে ইন্টারনেটে প্রচুর ফ্রি SEO tools বা website রয়েছে, যেগুলো ব্যবহার করে কনটেন্ট এ ব্যবহার করা কীওয়ার্ড এর ডেনসিটি চেক করা যেতে পারে।

তবে, নিচে আমি কেবল কিছু জনপ্রিয় ও ফ্রি টুল গুলোর নাম বলে দিচ্ছি।

এর বাইরেও, যদি আপনি একজন WordPress user তাহলে “Yoast SEO plugin” ব্যবহার করে আর্টিকেলের on page SEO সঠিক রাখার সাথে সাথে targeted keyword এর density ও check করতে পারবেন।

আর্টিকেল লিখার সময়, Yoast SEO option এ যখন আপনি আপনার “focused keyword” দিয়ে দিবেন, তখন আপনাকে অন্যান্য বিভিন্ন seo optimization steps এর সাথে keyword density ও দেখানো হবে।

Keyword density কত শতাংশ হতে লাগে ?

মনে রাখবেন, বর্তমান সময়ে আমরা প্রত্যেকটি আর্টিকেল user experience এর ওপর ধ্যান দিয়ে লিখা দরকার।

কারণ, Google সব থেকে অধিক এই বিষয়ে ধ্যান দেয় যে, আপনার লেখা আর্টিকেল user রা কতটা পছন্দ করছেন।

যদি, আপনি সঠিক keyword density মেনে আর্টিকেল গুলোতে targeted keyword ব্যবহার করেছেন, কিন্তু user রা আপনার আর্টিকেল পছন্দ করছেননা, তাহলে সেটা Google বিভিন্ন user এর মাধ্যমে জেনেই যাবে।

আর ফলে, আপনার আর্টিকেল গুলো গুগল সার্চে ভালো করে র্যাংক করবেনা এবং আপনি ব্লগে ট্রাফিক পাবেননা।

তাই, সবচে আগেই নিজের আর্টিকেলের কোয়ালিটি ভালো করতে হবে এবং এভাবে আর্টিকেল লিখতে হবে যাতে ইউসার রা সেটা পড়ে ভালো পান।

এক কথায় বললে, “user experience” এর ধ্যান রেখে আর্টিকেলে কীওয়ার্ড এর ব্যবহার করুন”.

তাছাড়া, যখনি আর্টিকেলে লক্ষবস্তু কীওয়ার্ড এর ব্যবহার করবেন সেটা কন্টেন্টে স্বাভাবিক ভাবে (naturally) ব্যবহার করতে হবে।

অনেকেই ভাবেন যে, আর্টিকেলে কীওয়ার্ড এর অত্যাধিক ব্যবহার করলে, গুগল থেকে প্রচুর traffic পাওয়া যাবে।

কিন্তু সেই ধারণা সম্পূর্ণ ভুল।

এতে গুগলের নজরে, আপনার কন্টেন্টে keyword stuffing করা হয়েছে বলে ধরা হবে।

ফলে, আপনার আর্টিকেল পেজটি গুগল সার্চ থেকে সরিয়ে দেওয়া হবে।

তাই সব সময়, আর্টিকেলে ১% থেকে ২% এর keyword density রেখে টার্গেটেড কীওয়ার্ড এর ব্যবহার করবেন।

আর তার সাথে, কিছু “Semantic keywords” এর ব্যবহার অবশই করবেন।

Semantic keywords হলো এমন কিছু keywords, যেগুলো আপনার target করা keyword এর সাথে রিলেটেড (related) অন্যান্য কিছু keyword.

কোথায় কোথায় কীওয়ার্ড এর ব্যবহার করবেন ?

দেখুন, আর্টিকেলে কীওয়ার্ড এর অত্যাধিক ব্যবহার করাটা খারাপ।

তাই, কীওয়ার্ড ডেনসিটি চেক করে ১% থেকে ২% এর ভেতরে রেখে যেকোনো আর্টিকেলে targeted keyword এর ব্যবহার করবেন।

কিন্তু, মনে রাখবেন, গুগল থেকে অধিক ট্রাফিক পাওয়ার জন্য, আর্টিকেলটি প্রচুর ভালো করে SEO optimization করতে হবে।

এবং, এই ক্ষেত্রে আর্টিকেলের কিছু বিশেষ জায়গায় লক্ষবস্তু কীওয়ার্ড এর ব্যবহার করাটা জরুরি।

আর্টিকেলের কোন অংশতে কীওয়ার্ড এর ব্যবহার জরুরি ?

  •  আর্টিকেলের permalink (URL) এ কীওয়ার্ড এর ব্যবহার করুন।
  • পোস্ট টাইটেলে targeted keyword এর ব্যবহার করুন।
  • H1,  H2, H3 tag গুলোতে একবার হলেও ব্যবহার করবেন।
  • আর্টিকেলের প্রথম প্যারাগ্রাফে (paragraph).
  • আর্টিকেলের শেষ প্যারাগ্রাফে।
  • ছবিতে ALT Tag হিসেবে ব্যবহার করুন।
  • আর্টিকেলের meta description এ কীওয়ার্ড ব্যবহার করুন।

মনে রাখবেন, ওপরে বলা জায়গা গুলোতে এভাবে নিজের লক্ষবস্তু কীওয়ার্ড গুলো ব্যবহার করতে হবে যাতে keyword density কোনো ভাবেই ২% থেকে ওপরে না যায়।

নাহলে, keyword stuffing এর ঝামেলাতে আপনার আর্টিকেল পেজটি পড়তে পারে।

তাছাড়া, যতটা সম্ভব আর্টিকেলের মুখ্য কীওয়ার্ড এর সাথে জড়িত কিছু long tail keywords এবং related keyword ব্যবহার করার পরামর্শ আমি দিবো।

এতে, গুগল থেকে অধিক ট্রাফিক পাওয়ার সুযোগ হয়ে দাঁড়াবে।

আমাদের শেষ কথা,

তাহলে বন্ধুরা, আশা করছি “keyword density কি” এবং “কিভাবে কীওয়ার্ড ডেনসিটি চেক করবেন” এবিষয়ে আপনারা সম্পূর্ণ স্পষ্ট করে বুঝতে পেরেছেন।

আমি আমার নিজের অভিজ্ঞতা এবং অনুভৱ এর ওপরেই আপনাদের কীওয়ার্ড ডেনসিটির বিষয়ে বলেছি।

আমার সব সময় এটাই চেষ্টা থাকে যাতে আমি আপনাদের সম্পূর্ণ কাজের এবং সঠিক তথ্য প্রদান করতে পারি।

এবং, একজন ব্লগার হিসেবে আজকের এই আর্টিকেল আপনাদের প্রচুর কাজে আসবে।

Blog এর SEO নিয়ে হয়তো আপনারা এই বিষয়ে কোনোখানেই শুনেননাই।

কারণ, বর্তমান সময়ে কেও নিজের secret প্রকাশ করতে চায়না।

তবে, আজকে আপনি আপনাদের keyword density নিয়ে বলার উদ্দেশ্য একটাই।

আমি চাই যে, আমাদের বাংলা ব্লগাররা সফল হয়ে দাঁড়াক।

আপনারা যদি ব্লগের আর্টিকেলে সঠিক keyword density মেনে targeted keyword ব্যবহার করেন, তাহলে গুগল থেকে ট্রাফিক ও ভিসিটর্স পেতে সমস্যা হবেনা।

শেষে, যদি আর্টিকেলটি ভালো লেগে থাকে তাহলে শেয়ার অবশই করবেন।

BanglaTech
Latest posts by BanglaTech (see all)



Source link

admin

Professional Graphic Designer

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

%d bloggers like this: