সম্পূর্ণ ফ্রিতে ভিসা কার্ড – ইসলামি ব্যাংক

কেমন আছেন সবাই?আশা করি সবাই ভালো আছেন। আজকে আমি আপনাদের সামনে তুলে ধরবো কিভাবে বাংলাদেশ থেকেই একটি ফ্রি ভিসা কার্ড নেওয়া যায়। এই ভিসা কার্ডটি শুধুমাত্র জন্মসূত্রীয় বাংলাদেশী সকল স্টুডেন্টদের জন্য প্রযোজ্য।
এবার মূল কথায় আসা যাক। ইতিমধ্যে আপনারা অনেকেই জানেন যে “বাংলাদেশ ইসলামী ব্যাংক লিমিটেড” বাংলাদেশের সকল স্টুডেন্টদের জন্য বিগত কয়েক বছর যাবৎ দিয়ে যাচ্ছে স্টুডেন্ট ব্যাংকিং সুবিধা। যা একেবারেই সম্পূর্ণ চার্জবিহীন। এক্ষেত্রে “বাংলাদেশ ইসলামী ব্যাংক লিমিটেড” সকল ‘এস এম এস এ'(স্টুডেন্ট একাউন্ট কে SMSA একাউন্ট বলা হয়) একাউন্ট হোল্ডারদেরকে একটি সম্পূর্ণ ফ্রি ‘ভিসা কার্ড’ দিয়ে থাকে।

  • এই ভিসা কার্ডটির চার্জ:
    এই ভিসা কার্ডের কোন রকম মাসিক বা বাৎসরিক চার্জ নেই, এমনকি এই কার্ডের কোন প্রকার পরিচালনা চার্জ নেই। মোট কথা বলা যায় এই ভিসা কার্ডটি সম্পূর্ণ চার্জ বিহীন।
  • এ টি এম (ATM) বুথ থেকে টাকা উত্তলন:
    এই ভিসা কার্ডটি দিয়ে “বাংলাদেশ ইসলামী ব্যাংক লিমিটেড” এর যেকোনো ATM বুথ থেকে টাকা উত্তলন করতে পারবে।
  • এমনকি বাংলাদেশের যেকোনো ব্যাংকের ATM বুথ থেকে টাকা উত্তলন করতে পারবে (যেই ATM বুথে ভিসা কার্ডের লগো থাকবে)। সেক্ষেত্রে অন্য ব্যাংকের ATM বুথ থেকে টাকা উত্তলনের সময় প্রতি লেনদেনে ১৫-৩০ টাকা ফি কাটবে। যা ইসলামী ব্যাংকের ATM এর ক্ষেত্রে সম্পূর্ণ ফ্রি। 
  • কেনাকাটা ও শপিং:
    বাংলাদেশের যেকোনো দোকান, হসপিটাল, এয়ারলাইন্স ইত্যাদিতে POS মেশিনের মাধ্যমে পেমেন্ট নেওয়া হয় সেখানে এই কার্ডটি দিয়ে খুব সহজেই পেমেন্ট করা যাবে। (ভিসা কার্ড একসেপ্টটেড হতে হবে)।
  • আউটসোর্সিং এর টাকা উত্তলন:
    যারা ফ্রিল্যান্সিং করেন তারা তাদের আয়কৃত টাকা এই কার্ডের মাধ্যমে উত্তলন করতে পারবেন। ইউটিবাররাও তাদের আয়কৃত টাকা এই কার্ডের মাধ্যমে উত্তলন করতে পারবেন।
  • কিভাবে একাউন্ট খুলবেন:
    যেকোনো বয়সের স্টুডেন্টরাই এই একাউন্ট খুলতে পারবে।
    ১ম স্টেপ-
    প্রথমেই আপনারা বাসা থেকেই প্রয়োজনীয় কিছু কাগজ পত্র গুছিয়ে নিবেন। কাগজ পত্র গুলো হলো:
    ১) আপনার ২ কপি পাসপোর্ট ছবি।
    ২) আপনার স্টুডেন্ট আইডি কার্ডের ফটোকপি। যাদের স্টুডেন্ট আইডি কার্ড নেই তারা তাদের অধ্যায়নরত প্রতিষ্ঠানের প্রত্যায়ন পত্রের ফটোকপি কিংবা সদ্য ইস্যুকৃত রেজিস্ট্রেশন কার্ডের ফটোকপি। (১ কপি)
    ৩) আপনার ন্যাশনাল এন আইডি কার্ডের ১ কপি ফটোকপি। যদি ন্যাশনাল এন আইডি কার্ড না থাকে তাহলে আপনার জন্ম নিবন্ধন এর ১ কপি ফটোকপি।
    ৪) আপনার নমিনীর (বাবা/মা) ন্যাশনাল এন আইডি কার্ডের ১ কপি ফটোকপি এবং ১ কপি পাসপোর্ট সাইজের ছবি।
    ৫) আপনার বাসার বিদ্যুৎ বিলের কাগজের ১ কপি ফটোকপি।

উপরোক্ত সকল কাগজ পত্র গুলো সঠিক ভাবে নিয়ে আপনার নিকটস্থ “বাংলাদেশ ইসলামী ব্যাংক লিমিটেড” এর যেকোনো শাখায় যান।
ব্যাংকে যাওয়ার পর “হিসাব খুলুন” ডেস্কে যান এবং ডেস্কের অফিসারকে বলুন যে আপনি স্টুডেন্ট একাউন্ট করতে চান। তারপর অই অফিসার ই আপনার সকল কাগজ পত্র নিয়ে একটি ফরম পূরন করেই আপনাকে একটি স্টুডেন্ট একাউন্ট খুলে দিবে। তারপর অই অফিসার সাথে সাথেই আপনাকে আপনার একাউন্ট নাম্বার দিয়ে দিবে।
তারপর এই একাউন্ট নাম্বারেই ১০০ টাকা জমা দিয়ে দিবেন। আপনার এই টাকাটা আপনার একাউন্টেই জমা থাকবে।
আপনার একাউন্ট খোলার দিন থেকে পরবর্তী ৩০ দিনের মধ্যেই আপনি “ভিসা কার্ড” টি পেয়ে যাবেন।

admin

Professional Graphic Designer

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

%d bloggers like this: