ব্লগের আর্টিকেল চুরি হওয়ার থেকে বাঁচিয়ে রাখুন (DMCA Protection)


DMCA কি ? কেন ব্যবহার করা হয় ?, আমরা ব্লগার রা অনেক কষ্ট করে ব্লগের প্রত্যেকটি আর্টিকেল লিখি এবং সেগুলি নিজের ব্লগের ভিসিটর্স বা ইউসার দের সাথে শেয়ার করি।

DMCA
What is DMCA in Bengali ?

কিন্তু, এর মধ্যেই ইন্টারনেটে এরকম অনেক লোক রয়েছেন, যারা ব্লগিং এর নামে, অন্যদের ব্লগ থেকে কনটেন্ট বা আর্টিকেল কপি (copy) ও চুরি করে, নিজেদের ব্লগে পাবলিশ করেন।

এমনিতে, এই সব চুরি করে ব্লগে আর্টিকেল পাবলিশ করা লোকেদের, আমি ব্লগার বা কনটেন্ট ক্রিয়েটর কখনোই বলবোনা।

ইন্টারনেটে লক্ষ লক্ষ ওয়েবসাইট বা ব্লগ রয়েছে, যেগুলির থেকে প্রত্যেকদিন অসংখক আর্টিকেল চুরি করে অন্যান্য ব্লগে পাবলিশ করা হয়।

এমনিতে আমার ব্লগ, “banglatech” থেকেও বিভিন্ন আর্টিকেল চুরি করে অন্যান্য ব্লগে ব্যবহার করা হয়েছে।

তাই, যদি আপনার একটি ব্লগ বা ওয়েবসাইট রয়েছে, তাহলে হয়তো আপনিও চাইবেননা যে, আপনার ওয়েবসাইটের কনটেন্ট কেও কপি বা চুরি করে ব্যবহার করুক।

এই ক্ষেত্রে, আপনি DMCA এর ব্যবহার করে, এই ধরণের অনলাইন কনটেন্ট চুরির থেকে নিজের ব্লগ বা ওয়েবসাইট গুলিকে বাঁচিয়ে রাখতে পারবেন।

হে, “DMCA copyright protection” হলো এমন একটি function, যেটার ব্যবহার ওয়েবসাইটে করলে, আপনার ওয়েবসাইট থেকে যদি কোনো article বা image চুরি হয়ে থাকে, তাহলে সেটার ওপরে action নিয়ে, চুরি করা কনটেন্টটি রিমুভ (remove) করানো যাবে।

এমনিতে, এভাবে অন্যের ওয়েবসাইট থেকে কনটেন্ট চুরি বা কপি করে ব্যবহার করে কোনো লাভ হয়না।

কিন্তু, তাও অনেক বেশি পরিমানে এই ধরণের content theft বা content copy র বিষয় ইন্টারনেটে দেখা যায়।

তাই, যখন আপনি নিজে কষ্ট করে লেখা আর্টিকেলটি, আপনার অনুমতি ছাড়া অন্য একটি ব্লগে পাবলিশ হওয়া দেখবেন, তখন আপনার খারাপ অবশই লাগবে।

এবং একজন ব্লগার হিসেবে, আমিও চাইনা যে আপনার কষ্টের ফল অন্য কেও পেয়ে যাক।

আর তাই, এই আর্টিকেলে আমি আপনাদের বলবো, “DMCA কি“, “DMCA কেন ব্যবহার করা হয়” এবং “কিভাবে DMCA badge নিজের ব্লগে লাগিয়ে, ব্লগের article, images এবং অন্যান্য কনটেন্ট গুলি অনলাইনে চুরি হওয়ার থেকে বাঁচিয়ে রাখতে পারবেন”.

DMCA কি ? (what is DMCA in Bangla)

DMCA র full form হলো “Digital millennium copyright act“.

Digital millennium copyright act (DMCA), হলো US Government দ্বারা জারি করা একটি আইন (law) যেটা ১৯৯৮ সালে president Bill Clinton দ্বারা পাস করা হয়েছিল।

এই DMCA আইনের মুখ্য উদ্দেশ্য হলো, কন্টেন্টের মালিক (copyright owners) এবং কনটেন্ট ব্যবহারকারীদের (users) মধ্যে একটি ভারসাম্য (balance) বজায় রাখা।

তাছাড়া, এই DMCA act এর মাধ্যমে, digital world এ হতে পারা যেকোনো ধরণের copyright infringement এর ক্ষেত্রে সমাধান পাওয়া যেতে পারে।

সোজা ভাবে বললে, digital world এ হওয়া যেকোনো ধরণের copyright issues যেমন, আর্টিকেল এবং ইমেজ চুরি করে অনুমতি ছাড়া তার অবৈধ ব্যবহার, এই ধরণে অন্যের content চুরি ও copy করে ব্যবহার করার ক্ষেত্রে এই act বা law র মাধ্যমে সমাধান বা বিচার পাওয়া যেতে পারে।

আরো সহজ ভাবে বুঝতে গেলে, DMCA হলো এবং একটি আইন, যার মাধ্যমে বিভিন্ন digital products যেমন, audio, video, images, text ইত্যাদি গুলিকে কপি বা চুরি হওয়ার থেকে বাঁচিয়ে রাখে।

এবং, যদিও চুরি হয়ে থাকে, তাহলে এর মাধ্যমে একটি বিচার, শাস্তি বা কনটেন্ট সরিয়ে দেওয়ার জন্য একটি ব্যবস্থা নিতে পারি।

একজন blogger হিসেবে, আপনি এই DMCA র মাধ্যমে, নিজের ব্লগে publish করা content, article বা images গুলি protect করে রাখতে পারবেন।

তাছাড়া, কোনো কারণে যদি আপনার ব্লগের কনটেন্ট কেও copy করে নিজের ব্লগ বা ওয়েবসাইটে যেকোনো মাধ্যমে ব্যবহার করে, তাহলে সহজে একটি “DMCA complaint” করে কপি করা কন্টেন্টটি take-down (remove) করিয়ে নিতে পারবেন।

একবার নিজের ওয়েবসাইটে DMCA badge লাগিয়ে নেওয়ার পর, যদি আপনার ব্লগের কনটেন্ট কেও কপি বা চুরি করে থাকে, তাহলে সেই ব্যাপারে আপনি তথ্য (information) পেয়ে যাবেন।

এবং, তারপর একটি complain করে, সেগুলি remove করিয়ে নিতে পারবেন।

সহজ ভাষাতে DMCA কাকে বলে ?

এমনিতে DMCA যে একটি copyright act বা law সেটাতো আপনারা বুঝতেই পেরেছেন।

তবে, একজন ব্লগার হিসেবে DMCA বললে আমরা কি বুঝবো সেটা সহজেই বুঝে নিতে হবে।

আমরা যেকোনো DMCA এর সাথে সংযুক্ত ওয়েবসাইট বা সংগঠনে নিজের content বা website জমা দিয়ে, আগেই জানিয়ে দিচ্ছি যে, আমার নিজের তৈরি করা কনটেন্ট গুলি কি কি এবং কখন থেকে সেগুলি আমার।

এতে, DMCA service provider ওয়েবসাইট গুলির database এ আমাদের ওয়েবসাইটের কনটেন্ট গুলি জমা হয়ে থাকবে।

তারপর, যদি কোনো অন্য ওয়েবসাইট যদি আমাদের কনটেন্ট ব্যবহার করে থাকে, তাহলে সেটার বিষয়ে আমরা জেনে নিতে পারি।

এবং তারপর, সেখান থেকে কপি করা কনটেন্ট সরিয়ে ফেলতে পারি।

DMCA protect certificate কি ?

DMCA protection কি
DMCA certificate demo

যদি আমরা আমাদের ওয়েবসাইটের পেজ গুলিতে DMCA badge লাগাই, তাহলে আমাদের সেই পেজ এর জন্য একটি certificate দেওয়া হয়।

Certificate এ, আপনার ওয়েবসাইটের পেজের সাথে জড়িত তথ্য থাকবে এবং কখন আপনি সেই পেজটি DMCA তে কবে submit করেছেন, সেটাও সেখানে থাকবে।

আপনি, ওয়েবসাইটের যেই পেজ বা আর্টিকেল পেজ জমা করবেন, সেই পেজের title, URL Address, protection কখন থেকে একটিভ রয়েছে এবং কত দিন হয়েছে, এরকম কিছু তথ্য আপনার certificate এ থাকবে।

তাই, যদি আপনি অনেক কষ্ট করে নিজের ওয়েবসাইটে content বা articles publish করছেন, তাহলে সেগুলি সুরক্ষিত রাখার জন্য, DMCA badge অবশই ব্যবহার করবেন।

নিজের ওয়েবসাইট DMCA তে register করুন

নিজের ব্লগ বা ওয়েবসাইট DMCA তে register করাটা অনেক সহোব এবং সম্পূর্ণ ফ্রেটেই সেটা করতে পারবেন।

এমনিতে এখানে দুটি plan রয়েছে।

একটি ফ্রি এবং একটি পেইড (paid).

আপনি paid plan নিলে, আপনাকে আরো অধিক security options দেওয়া হবে, এবং যদি কেও আপনার কনটেন্ট কপি (copy) করে, তাহলে তার ওপরে সাথে সাথে অ্যাকশন (action) নেওয়া হবে।

এই ক্ষেত্রে, সবচে আগেই আপনাদের যেতে হবে, “DMCA website” এবং তারপর একটি ফ্রি একাউন্ট সেখানে তৈরি করতে হবে।

DMCA registration

DMCA ওয়েবসাইটে গিয়ে, হাথের বাম দিকে (left side) আপনারা কিছু badges দেখছেন যেগুলির মধ্যে যেকোনো একটি বেছে নিন।

তারপর, হাথের দান দিকে (right side), “Register your badge” অপশনের নিচে, আপনার নাম, ইমেইল আইডি দিয়ে “Signup” অপশনে ক্লিক করুন।

এখন, আপনার দেওয়া ইমেইল আইডিতে একটি “confirmation email” চলে গেছে। সেখানে আপনারা নিজের account details, login ID এবং password পেয়ে যাবেন।

কিভাবে কোড (code) ওয়েবসাইটে যোগ করবেন ?

এখন, “Embed your badge” অপশনের নিচে থাকা “HTML code” টি কপি করুন এবং নিজের ওয়েবসাইট বা ব্লগে পেস্ট (paste) করুন।

যদি আপনি blogger.com ব্যবহার করে ব্লগ বা ওয়েবসাইট তৈরি করেছেন, তাহলে “blogger dashboard” থেকে “Layout” অপশনে ক্লিক করতে হবে।

Dashboard এর বাম দিকে (left side) আপনারা দেখতে পাবেন।

Layout এ ক্লিক করার পর আপনারা “add a gadget” এর লিংক দেখতে পারবেন।

Add blogger gadget

ওপরে ছবিতে স্পষ্ট করে বুঝতেই পারছেন।

এখন, Add a Gadget অপশনে ক্লিক করার সাথে সাথে, blogger আপনাদের কিছু gadget দিয়ে দিবে যেগুলি আপনারা নিজের ব্লগে ব্যবহার করতে পারবেন।

তবে, আমাদের কেবল DMCA badge এর HTML code টি ব্লগে যোগ করতে লাগবে।

তাই, আমরা “HTML / JavaScript” অপশনে ক্লিক করে দিবো।

ক্লিক করার পর, আমাদের সামনে একটি box খুলে যাবে, যেখানে DMCA badge এর জন্য কপি করা HTML code টি আমরা পেস্ট (paste) করবো।

add html code in blogger
Add html code in blogger

এখন, code paste করে নিচে থাকা “Save” বাটনে ক্লিক করুন।

Congratulation, আপনার ওয়েবসাইট অথবা ব্লগে এখন সঠিক ভাবে DMCA badge দেখানো হবে।

DMCA protection enabled

যদি আপনি WordPress ব্যবহার করেছেন, তাহলে DMCA WordPress plugin ব্যবহার করে, কোডটি নিজের WordPress ব্লগে পেস্ট করতে পারবেন।

তাছাড়া, WordPress widget এ থাকা custom HTML box ব্যবহার করেও কোড যোগ করা যাবে।

আপনি ব্লগ বা ওয়েবসাইটের যেই পেজ বা আর্টিকেল পেজের থেকে এই “DMCA protected icon” এ ক্লিক করবেন, আপনাকে সেই পেজের certificate দেখিয়ে দেওয়া হবে।

মনে রাখবেন, শেষে আপনার DMCA dashboard এ গিয়ে, website এর URL address বা domain জমা দিতে হবে।

এই ক্ষেত্রে, আপনারা Dashboard এ থাকা “Add a site” অপশনের ব্যবহার করতে পারবেন।

আমাদের শেষ কথা,

DMCA কি বা কাকে বলে এবং ফ্রেটেই নিজের ওয়েবসাইটে DMCA badge লাগিয়ে ওয়েবসাইটের কনটেন্ট, আর্টিকেল বা ছবি কিভাবে সুরক্ষিত রাখবেন, এই বেপারে আপনারা জেনেনিলেন।

যদি এছাড়াও, dmca নিয়ে কোনো প্রশ্ন বা সমস্যা বা প্রশ্ন রয়েছে, তাহলে নিচে কমেন্ট করে অবশই আমাকে জানিয়ে দিবেন।

আপনার সাহায্য করে আমি খুশি হবো।

আপনি যদি DMCA badge ব্যবহার করছেননা তাহলে সেটা কেনো এবং যদি করছেন তাহলে কখন থেকে, সেটাও comment এর মাধ্যমে জানিয়ে দিন।

এতে, অনন্য user রা আপনার থেকে জেনে নিতে পারবেন।

অবশই পড়ুন :

Latest posts by BanglaTech (see all)



Source link

admin

Professional Graphic Designer

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

%d bloggers like this: